মুক্তিযুদ্ধের পরাজিত শক্তিই ১৫ই আগস্টের হত্যাকান্ড ঘটায়।

The losing force of the War of Liberation was the murder of August 15 - Dr. Harun-or-Rashid.

0

মুক্তিযুদ্ধের পরাজিত শক্তিই ১৫ই আগস্টের হত্যাকান্ড ঘটায় – ড. হারুন-অর-রশিদ।

War of Liberation
মুক্তিযুদ্ধের পরাজিত শক্তিই ১৫ই আগস্টের হত্যাকান্ড ঘটায় – ড. হারুন-অর-রশিদ।

আজ ২৯শে আগস্ট বৃহস্পতিবার সকাল ১১টায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৪তম শাহাদত বার্ষিকী ও জাতীয় শোকদিবস উপলক্ষ্যে ঢাকার বাঙলাবাজার চত্বরে মো. আরিফ হোসেনের সভাপতিত্বে বাংলাদেশ পুস্তক প্রকাশক ও বিক্রেতা সমিতি আয়োজিত এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির ভাষণে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় এর উপাচার্য প্রফেসর ড. হারুন-অর-রশিদ বলেন, ‘পাকিস্তান কখনোই বঙ্গবন্ধুর রাষ্ট্রভাবনায় ছিল না। তাঁর রাষ্ট্রভাবনা জুড়ে ছিল বাঙালির জন্য একটি স্বাধীন আবাসভূমি, যা তাঁর নেতৃত্বে ৭১-এর মহান মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে প্রতিষ্ঠা লাভ করে। বাংলাদেশ হচ্ছে বিশ্বের মধ্যে একটি রাষ্ট্রের ভূখ- থেকে সশস্ত্র মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে স্বাধীনতা অর্জনের নজির সৃষ্টিকারী দেশ। ঐ মুক্তিযুদ্ধে দখলদার পাকিস্তানি বাহিনীই শুধু পরাস্ত হয় নি, পাকিস্তানের সমর্থক কোনো-কোনো বৃহৎ ও পরাশক্তিও পরাজয়বরণ করে। স্নায়ুযুদ্ধকালীন বিশ্ব রাজনীতির বিবাদমান পরিবেশ-পস্থিতিতে ৭১-এর মহান মুক্তিযুদ্ধে পরাজিত দেশি-বিদেশি মহলবিশেষ এক গভীর ষড়যন্ত্রের নীল-নকশা অনুযায়ী ১৯৭৫ সালের ১৫ই আগস্ট হত্যাকা- সংঘটিত করে, যার নির্মম শিকার জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তাঁর পরিবারের উপস্থিত সকল সদস্য। অতএব ঐ হত্যাকা- কোনো বিচ্ছিন্ন ঘটনা ছিল না এবং এটিও আদৌ ঠিক নয় যে, একদল বিপথগামী সেনাসদস্য এ হত্যাকা- সংঘটিত করেছে। জাতির পিতাকে খুনিচক্র হত্যা করতে সমর্থ হয় বটে, তবে তাঁর আদর্শকে হত্যা করতে পারে নি। জাতির পিতার আদর্শের মৃত্যু নেই এবং তাঁর নির্দেশিত পথ ধরেই আজ বাংলাদেশ তাঁর রক্ত ও আদর্শের উত্তরাধিকার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে খুধা-দারিদ্রমুক্ত উন্নত-সমৃদ্ধ সোনার বাংলার স্বপ্নপূরণে জাতি দৃঢ় পদক্ষেপে এগিয়ে যাচ্ছে।’

ডিগ্রী পাস ও সার্টিফিকেট কোর্স ৩য় বর্ষ পরীক্ষার ফরম পূরণের সময় বৃদ্ধি সংক্রান্ত পুনঃবিজ্ঞপ্তি।

 

অনুষ্ঠানে ঢাকা ৬ আসনের মাননীয় সংসদ সদস্য কাজী ফিরোজ রশীদ উপস্থিত থেকে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও নেতৃত্ব এবং ১৫ই আগস্টের হত্যাকা- সম্বন্ধে বক্তব্য রাখেন।